একুশে ফেব্রুয়ারি কি খোকসার অধিকাংশ শিক্ষার্থী জানে না!

 নিজস্ব প্রতিবেদক॥ কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে ৪৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১০ টি তে আছে ভাষা শহীদদের জন্য নির্মিত শহীদ মিনার। ৩৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নাই ভাষা শহীদদের জন্য নির্মিত শহীদ মিনার।

এমনকি উপজেলা প্রতিষ্ঠার ৩৫ বছরেও নির্মিত হয় নাই ভাষা শহীদদের স্বরণের জন্য কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। উপজেলার ৪৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ১৫ হাজার ১২৩ জন শিক্ষার্থীর অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা জানে না একুশে ফেব্রুয়ারি তাৎপর্য কি? আজ জাতি যথাযথ মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ প্রতিটা প্রতিষ্ঠানেই জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজন করেছে। অথচ উপজেলার কোমলমতি শিক্ষার্থীরা জানে না একুশে ফেব্রুয়ারির তাৎপর্য কি।

উপজেলার ছয়টি মাদ্রাসার মধ্যে একটি মাদ্রাসাতেও নাই শহীদ মিনার। এমনকি জাতীয় সংগীত ও ঠিক মতো পাঠ হয় না বলে জানিয়েছে স্থানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগ। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দশটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শহীদ মিনার রয়েছে তারা হলো ঈশ্বরদী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ফুলবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সেনগ্রাম মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বনোগ্রাম মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্কুল এন্ড কলেজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, রমানাথপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, খোকসা-জানিপুর সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ধোকড়াকোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ওসমানপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, খোকসা সরকারি কলেজ ও খোকসা আবু তালেব ডিগ্রী কলেজ। সরেজমিনে এ সকল বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সদুত্তর পাওয়া যায়নি একুশে ফেব্রুয়ারি কেন পালন করা হয়। স্থানীয় অভিভাবক ও শিক্ষিত মহড়া মনে করেন শিক্ষার্থীদের কে একুশে ফেব্রুয়ারি তথা মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কোন কিছু না শিখানোর কারণেই নতুন প্রজন্ম অজানাই রয়ে গেছে একুশে ফেব্রুয়ারির তাৎপর্য।

মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা শহীদদের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে সকলে এগিয়ে আসবে এমনটাই আশা করে আজকের এই একুশে ফেব্রুয়ারির তাৎপর্য।

কুষ্টিয়ার সময়-আ.আ.হ/মৃধা

বিজ্ঞাপন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *