দৌলতপুরে ট্রাভেল ব্যাগ থেকে গাঁজা উদ্ধার!

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলা পুলিশ কার্যালয় ‘দৌলতপুর থানা থেকে’ ৫-৭ মাইলের পথের পর শহরমুখী প্রধান সড়কের আল্লাহর দর্গা বাজারে ঢাকাগামী কোচগুলোর কাউন্টার। লাগেজ ভরা গাজা নিয়ে ঢাকার পথে রওনা হতে কাউন্টারে অপেক্ষমাণ যুবকের নাম রাজু আহমেদ, বাড়ি এই উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নে।

সড়কের মুখ সীমান্তের প্রাগপুর থেকে দূরপাল্লার গাড়িতে নিজের টিকেট বুকিং দিলেও,মাদক পাচারে ঝুঁকি এড়াতে প্রায় পনের মাইল রাস্তা বুকিং করা সিটে না বসে অন্য বাহন ব্যাবহার করেছে রাজু। গেটআপ-সেটআপে শহরমুখী শিক্ষিত তরুণ।

সাব ইন্সপেক্টর খসরু আলমের মুঠোফোনে উড়ো কলে খবর আসে– এসবি পরিবহনে ঢাকার রুটে গাঁজা পাচার হচ্ছে।

সূত্র গোপন রেখে ওসি নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে রওনা দেন অভিযানকারী দল। এসআই খসরু, এএসআই ওবায়দুরসহ অন্যান্যরা ৭-৮ মিনিটেই সরাসরি পৌছে কাউন্টারে। সূত্রের জানিয়ে রাখা ট্রাভেল ব্যাগের কালো রঙ মিলে যাওয়ায়, আরও স্পষ্ট করে দিলো মাদক কারবারি রাজু’র অবস্থান। ঘটনাস্থলে ততক্ষণে পৌছে গেছে রাজুর প্রত্যাশিত গাড়ি, এসবি সুপার ডিলাক্স।

পরে কাছে গিয়ে ট্রলি খুলতে বলতে হতচকিত রাজু নিজেই খুলে বের করে থলের বিড়াল। কাপড়ের পুটলিতে প্যাচানো পলিথিনে আলাদা দুই জায়াগায় পাওয়া যায় ৬ কেজি ওজনের গাঁজা।

আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদে রাজু জানায় তার দীর্ঘদিন এই ব্যবসায় জড়িত থাকার কথা। মাল নিয়ে যাচ্ছিলো ঢাকার মাদকের পসরায়।

এ ঘটনায় দৌলতপুর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা হয়েছে। আসামি রাজুকে আদালাতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ওসি নজরুল ইসলাম বলেন– ৯ মার্চ শনিবার রাত সাড়ে ন’টার দিকে আল্লাহর দর্গা বাজার এলাকা থেকে ৬ কেজি গাজাসহ ঐ ব্যাক্তিকে আটকের তথ্য সত্য। মামলা নম্বর ১৭,তারিখ ১০ মার্চ ২০১৯।

এসআই খসরু বলেন– বিভিন্ন সুত্র থেকে আসা তথ্যগুলো আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এবং আমরা এই অঞ্চলে মাদক নিয়ন্ত্রণে জিরো টলারেন্স নীতিতে চলছি।

কুষ্টিয়ার সময়-আ.আ.হ/মৃধা

বিজ্ঞাপন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *