কুষ্টিয়ায় স্কুলছাত্রী ধর্ষণ মামলায় যাবজ্জীবন

কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার স্কুলছাত্রী অপহরণ ও ধর্ষণ মামলায় একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও একলাখ টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছে আদালত।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সি মোঃ মশিয়ার রহমান আদালতে পলাতক আসামির অনুপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন, দৌলতপুর উপজেলার দৌলতখালী গ্রামের খালেক সরদারের পূত্র মো: রকিবুল (২৪)। আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালের ০১ জানুয়ারি সকাল ১০টায় দৌলতপুর বালিকা বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ঐ ছাত্রী বাড়ি থেকে বের হয়ে স্কুলে যাওয়ার সময় স্কুলের নিকটস্থ রাস্তা থেকে আসামি রাকিবুল তার আরও দুই সহযোগি ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক মটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায় এবং ধর্ষণ করে।

এঘটনায় ভিকটিমের বড় ভাই মজনুর রহমান বাদি হয়ে ২৫জানুয়ারি, ২০১৬ তারিখে দৌলতপুর থানায় মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত শেষে ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ তারিখে আসামির বিরুদ্ধে অপরহণ ও ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন পুলিশ।

কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের সরকারী কৌশুলী এ্যাড. আকরাম হোসেন দুলাল জানান, দৌলতপুর থানার স্কুলছাত্রী অপরণ ও ধর্ষণ মামলায় আসামি রকিবুলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০ এর দ:বি: ৭ ধারায় অপহরণ এবং ৯(১) ধারায় ধর্ষনের অভিযোগ গঠন করে দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী করেন আদালত।

স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে আসামির বিরুদ্ধে অনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমাণিত হওয়ায় দুইটি ধারায় যথাক্রমে অপহরণের দায়ে ১৪ বছর কারাদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা এবং ধর্ষনের দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদেশ দিয়েছেন বিজ্ঞ আদালত।

উভয়দন্ড একযোগে প্রযোজ্য হবে। আসামি জামিনে থেকে পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

কুষ্টিয়ার সময়-আ.আ.হ/মৃধা

বিজ্ঞাপন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *