কুষ্টিয়া জেলার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ফল স্থগিত

কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃ

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত কুষ্টিয়া জেলার ঘোষিত চূড়ান্ত ফল ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

এ সংক্রান্ত রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে রোববার (২ ফেব্রুয়ারী) বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদারের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট এস এম শহিদুল ইসলাম। তাকে সহযোগিতা করেন আইনজীবী তানজিলা ফেরদৌসী। সরকার পক্ষের আইনজীবি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করে আইনজীবী শহিদুল ইসলাম কুষ্টিয়ার সময়কে বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৩-এর ৭ ধারায় বলা হয়েছে, এই বিধিমালার অধীন সরাসরি নিয়োগযোগ্য পদগুলোর ৬০% নারী প্রার্থীদের দ্বারা, ২০% পৌষ্য প্রার্থীদের দ্বারা এবং বাকী ২০% পুরুষ প্রার্থীদের দ্বারা পূরণ করা হইবে। কিন্তু ২৪ ডিসেম্বরের ঘোষিত চূড়ান্ত ফলাফলের ক্ষেত্রে কুষ্টিয়া জেলায় ১০৬ জন প্রার্থীকে নির্বাচিত করা হয়। যেখানে ৬৭ জন পুরুষ এবং ৩৯ জন মহিলা যেখানে ২০১৩-এর ৭ ধারা পুরোপুরি অনুসরণ করা হয়নি। তাই কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার বাসিন্দা সালমা খাতুন হাইকোর্টে রিট করেন।

তিনি আরও বলেন, আদালত থেকে কুষ্টিয়া জেলার ফলাফলের ওপর ৬ মাসের স্থগিতাদেশ দিয়ে রুল জারি করেছেন এবং সেটার অনুলিপি অধিদপ্তরসহ কুষ্টিয়া জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ৩০ জুলাই সহকারী শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। পরে ওই বছরের ১ থেকে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত সারাদেশ থেকে ২৪ লাখ পাঁচজন প্রার্থী আবেদন করেন। প্রথম ধাপে ২৪ মে, দ্বিতীয় ধাপে ৩১ মে, তৃতীয় ধাপে ২১ জুন এবং চতুর্থ ধাপে ২৮ জুন লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

সেপ্টেম্বরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ লিখিত পরীক্ষায় ৫৫ হাজার ২৯৫ জন পাস করেন। গত ৬ অক্টোবর থেকে নিয়োগ পরীক্ষার মৌখিক পরীক্ষা শুরু হয়। মাসব্যাপী সারাদেশের সব জেলায় মৌখিক পরীক্ষা আয়োজন করা হয়। এ পরীক্ষায় ৬১ জেলায় ১৮ হাজার ১৪৭ জন চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হন।

(Visited 156 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *